Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

প্রযুক্তিগত সেবাঃ

* উন্নত ও আধুনিক উচ্চ ফলনশীল জাতের উদ্ভাবন ও দ্রুত কৃষক পর্যায়ে সম্প্রসারণ।

* সীমিত জমির সুষ্ঠ ও সঠিক ব্যবহার।

* জমির উপযুক্ততার ভিত্তিতে ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধি।

* পানির অপচয়রোধে পানি সম্পদের সঠিক ব্যবহার

* বসতবাড়ীতে পরিত্যক্ত জমির যথার্থ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ।

* চাষাবাদে আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতির ব্যবহার।

* প্রদর্শনী স্থাপনের মাধ্যমে বিভিন্ন কৃষি প্রযুক্তির দ্রুত সম্প্রসারণ।

* আধুনিক প্রযুক্তি ব্যাপক প্রচার ও প্রসারের জন্য তথ্য প্রযুক্তি ও প্রচার মাধ্যমের ব্যবহার।

পরিসংখ্যানগত সেবাঃ

* জরিপের মাধ্যমে আবাদী / অনাবাদী জমির পরিমাণ নির্ধারণ।

* মৌসুমী ফসলের আবাদ ও উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন ও বাস্তবায়ন।

* ফসলের নীট উৎপাদন নির্ধারণ।

* ফসলের গড় ফলন নির্নয়।

* বার্ষিক কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

* জাতীয় পর্যায়ে গৃহীত কৃষি বিষয়ক সকল কার্যক্রমে অংশ গ্রহণ।

* চাষাবাদের আধুনিক কলাকৌশল ও প্রযুক্তিসমূহ দ্রুত কৃষক পর্যায়ে সম্প্রসারণের উদ্দেশ্যে জাতীয় কৃষি কর্মসূচীর অংশ হিসাবে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বৃক্ষমেলা,বৃক্ষ রোপণ পক্ষ,কৃষি মেলা,বীজ মেলা,কৃষি যন্ত্রপাতি প্রদর্শনী মেলা,সেমিনার ইত্যাদির আয়োজন করা।

আইনগত সেবাঃ

* কীটনাশক সংরক্ষণ,বাজারজাতকরণ ও ব্যবহার বিধি মেনে চলার ব্যাপারে সহায়তা প্রদান।

* সার সংক্রান্ত আইনগত সেবা প্রদান।

* বৃক্ষ রোপণ বিধি মেনে চলার ব্যাপারে সহায়তা প্রদান।

* সেচ যন্ত্র স্থাপন ও ব্যবহার বিষয়ক আইনগত সহায়তা প্রদান।

 

 সেবা কিভাবে পাবেনঃ

 

* ব্লক পর্যায়ঃ

 

পাবনা জেলায় মোট ২২৮ টি ব্লক। প্রতিটি ব্লকে একজন করে উপসহকারী কৃষি অফিসার দায়িত্বরত আছেন। কাজের সুবিধার্থে প্রতিটি ব্লককে ৮ টি সাব-ব্লকে ভাগ করা হয়েছে। তারা পরিদর্শন সিডিউল মোতাবেক প্রতিটি সাব-ব্লক নিয়মিতভাবে পরিদর্শন করেন এবং কৃষকদের সাথে ব্যক্তিগত ও দলীয়ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন । কৃষকদের সাথে সরাসরি চাষাবাদ ও উৎপাদন সংক্রামত্ম বিষয়াদি ও সমস্যাদি নিয়ে মত বিনিময় করে থাকেন । কৃষকদের তথ্য ও প্রযুক্তি দিয়ে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করে উৎপাদন বৃদ্ধিতে সরাসরি সম্পৃক্ত রয়েছেন। কৃষকদের চাহিদা ও সমস্যার তাৎক্ষণিক সমাধানে তৎপর রয়েছেন। এছাড়াও প্রতিটি ব্লকে স্থাপিত পরামর্শ কেন্দ্র ও ইউনিয়ন কমপ্লেক্স থেকেও একজন কৃষক তার চাহিদা অনুযায়ী পরামর্শ সেবা নিতে পারছেন।

 

* উপজেলা পর্যায়ঃ

 

উপজেলায় উপসহকারীদের পাক্ষিক সম্মেলনের মাধ্যমে উপজেলার সকল ব্লকের সংগৃহীত কৃষি বিষয়ক সমস্যাবলীর পর্যালোচনা করে সমাধান করে ফিডব্যাক উপসহকারীদের মাধ্যমে তা কৃষকদের কাছে পৌঁছানো হয়। এ ছাড়াও কৃষকের চাহিদা নিরূপন করে সময়োপযোগী কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। কৃষক সরাসরি এসেও প্রয়োজনীয় পরামর্শ গ্রহণ করে থাকেন।

 

* জেলা পর্যায়ঃ

গবেষণালব্ধ আধনিক উন্নত জাতসমূহ ও প্রযুক্তি সমূহ মাঠ পর্যায়ে সম্প্রসারণের জন্য কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় এবং সকল কৃষককে সেবার আওতায় আনার জন্য এবং সেবা সমূহ তাদের দোর গোড়ায় পৌঁছানোর লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ের সকল কার্যক্রম নিয়মিতভাবে মনিটরিং করা হয়। কৃষক সরাসরি এসেও প্রয়োজনীয় পরামর্শ গ্রহণ করে থাকেন।